আজ ৪ আশ্বিন, ১৪২৮, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১

গাইবান্ধায় বন্যা: ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ৪০ সেন্টিমিটার ও ঘাঘট নদীর পানি ১৯ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ উজান থেকে নেমে আসা ঢল এবং বৃষ্টির কারণে গাইবান্ধা জেলার মধ্যদিয়ে প্রবাহিত সবকটি নদ-নদীর পানি হুহু করে বাড়ছে। আজ সন্ধ্যে ৭ টায় ব্রহ্মপুত্রের পানি ফুলছড়ি পয়েন্টে বিপদসীমা ৪০ সেন্টিমিটার ও ঘাঘট নদীর পানি নতুন ব্রীজ এলাকায় বিপদসীমার ১৯ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।  তিস্তা নদীর পানি কাউনিয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ২২ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আজ গাইবান্ধায় বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ১৯ মিলিমিটার।

পানি বৃদ্ধির কারণে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সদর উপজেলার ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও যমুনার ২৫৫টি চরের নিম্নাঞ্চল তলিয়ে গেছে। অনেকের বাড়ি ঘরে পানি উঠতে শুরু করেছে। রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছে নদী চরের মানুষগুলো। এসব এলাকার বসতবাড়ির লোকজন পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। সেইসঙ্গে পাট, পটল, কাঁচামরিচ ও শাক-সবজির ক্ষেতসহ সদ্য রোপণকৃত বীজতলা তলিয়ে গেছে। পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে কয়েকটি পয়েন্টে নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে। উড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহাতাব উদ্দিন জানান, পানি বৃদ্ধি কারণে নিম্নাঞ্চলের বেশ কিছু এলাকার ফসলি জমি তলিয়ে গেছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে ৪০ হাজার মানুষ। পানি বৃদ্ধি সাথে সাথে গত কয়েকদিনের ভাঙনে উড়িয়া ইউনিয়নের উত্তর উড়িয়া ও কাবিলপুর এলাকার ৪৬টি পরিবার নদী ভাঙনের শিকার হয়েছে।

এদিকে গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর-বালাসীঘাটের কাছে ব্রহ্মপুত্র বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধটি গত বছর বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হলেও পানি উন্নয়ন বোর্ড তা মেরামতের কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। ফলে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধির সাথে সাথেই বাঁধ ভাঙা এলাকা দিয়ে পানি ঢুকে সাঁতারকান্দির চর ও ভাষারপাড়া এলাকা আকস্মিক বন্যায় নিমজ্জিত হয়ে পড়ে। ফলে ওই দুটি গ্রামসহ পার্শ্ববর্তী এলাকার প্রায় ২ হাজার ৫০০ পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়ে। অনেকে বাড়িঘর ছেড়ে বেড়ি বাঁধে খোলা আকাশের নিচে আশ্রয় নিয়েছে।

জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুল মতিন জানান, বন্যার কারণে যে কোন সমস্যা মোকাবেলায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের সাথে বৈঠকসহ সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে।
সিভিল সার্জন ডা. এবিএম আবু হানিফ জানিয়েছেন, নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে বন্যার সম্ভাবনা দেখা দেওয়ায় সকল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের মেডিকেল টিমসহ প্রয়োজনীয় জরুরী মজুত নিশ্চিত করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে এবং বন্যা দুর্গত এলাকায় জরুরী পরিস্থিতি মোকাবেলার প্রস্তুতি নেয়ার জন্যও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোখলেছুর রহমান জানান, তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্রে আগামী ৪ থেকে ৫ দিন বাড়তে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর