রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০২:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
শিরোনাম:
ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্টের সুবিধা নিতে হলে শরীরচর্চার বিকল্প নেই – ডেপুটি স্পীকার গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতাল নারীদের ক্রীড়া ও ঐতিহ্যবাহী তীর ছোড়া প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক উৎসব গাইবান্ধা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব গ্রহণ সাদুল্লাপুরে ব্যবসায়ী জ্যোতিশ চন্দ্র রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ কুড়িগ্রামে মহিষের গাড়ীতে বিয়ে আত্রাইয়ের মনিয়ারী ইউনিয়ন আ”লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গোবিন্দগঞ্জে ইয়াবা ও ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ি আটক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা, প্রতিবাদে গাইবান্ধায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ গাইবান্ধা প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির বিশেষ সভা গাইবান্ধার তুলশিঘাটে বাস চাপায় নানি-নাতনি নিহত

মুলাদী উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ৫ জনকে কুপিয়ে জখম

নিজস্ব প্রতিবেদক / ১৫০ বার পঠিত
প্রকাশের সময়: শনিবার, ৬ নভেম্বর, ২০২১, ১১:৫০ অপরাহ্ন

বরিশাল  প্রতিনিধি: মুলাদী উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নে বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ৫ জনকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হলে শনিবার সবুজ খান নামে একজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। হামলায় গুরুতর আহত তিনজনকে প্রথমে বরিশাল শেবাচিমে ও পরে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এরআগে শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নের রাঘুয়া কাজিরচর এলাকায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আ. মন্নান ফকিরের বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে। থানায় চাঁদা চাওয়ার অভিযোগ করায় একই এলাকার সবুজ খানের ছেলে রাব্বী খানের নেতৃত্বে এই হামলা করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের আহত সদস্যরা।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আ. মন্নান ফকির জানান, শুক্রবার তার ছেলে আল মিরাজ সজিব এলাকার মসজিদে জুমার নামাজ পড়তে যান। নামাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে রাব্বী খান ও তার সহযোগীরা পথরোধ করে টাকা দাবি করে। আল মিরাজ টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাকে মারধর করে রাব্বী খান।ওই ঘটনায় মন্নান শুক্রবার বিকালে মুলাদী থানায় রাব্বী খানের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেন। অভিযোগের ভিত্তিতে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে তদন্তে যান। এতে ক্ষিপ্ত হন রাব্বী খান ও তার সহযোগীরা।

আ. মন্নান ফকির আরও জানান, শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে হামলাকারী রাব্বী খান, তার পিতা সবুজ খান, সহযোগী ইমরান খান, নজরুলসহ ৫-৭জন রামদা ও লাঠিসোটা নিয়ে তাদের বাড়িতে হামলা চালায়।

হামলাকারীরা ইমরান ফকির, আল মিরাজ, জসিম ফকির, শাহাবুদ্দিন ফকির, আলমতাজ বেগমকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। আহতদের ডাকচিৎকারে স্থানীয়রা এসে তাদের উদ্ধার করে মুলাদী হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এদের মধ্যে আলমতাজ বেগম, ইমরান ও আল মিরাজের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার উন্নতি না হলে রাতেই তাদের ঢাকায় জাতীয় অর্থোপেডিক (পঙ্গু) হাসপাতালে নিয়ে যান স্বজনরা।

ঘটনার পর থেকে রাব্বী খান ও তার সহযোগীরা পলাতক রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মুলাদী থানার ওসি এস.এম মাকসুদুর রহমান জানান, হামলায় ঘটনায় মামলা হয়েছে।একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।


এ জাতীয় আরো খবর
এক ক্লিকে বিভাগের খবর