সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১০:০৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
শিরোনাম:
ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্টের সুবিধা নিতে হলে শরীরচর্চার বিকল্প নেই – ডেপুটি স্পীকার গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতাল নারীদের ক্রীড়া ও ঐতিহ্যবাহী তীর ছোড়া প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক উৎসব গাইবান্ধা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব গ্রহণ সাদুল্লাপুরে ব্যবসায়ী জ্যোতিশ চন্দ্র রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ কুড়িগ্রামে মহিষের গাড়ীতে বিয়ে আত্রাইয়ের মনিয়ারী ইউনিয়ন আ”লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গোবিন্দগঞ্জে ইয়াবা ও ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ি আটক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা, প্রতিবাদে গাইবান্ধায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ গাইবান্ধা প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির বিশেষ সভা গাইবান্ধার তুলশিঘাটে বাস চাপায় নানি-নাতনি নিহত

দেশে বজ্রপাত পূর্বাভাস যন্ত্র বসানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক / ২২১ বার পঠিত
প্রকাশের সময়: বুধবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২১, ২:৪৩ অপরাহ্ন
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান

খোঁজ খবর রিপোর্ট: দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান জানিয়েছেন বজ্রপাতের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগে প্রাণহানি ঠেকাতে বজ্রপাত পূর্বাভাস যন্ত্র বসানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। জন্য ৪৭৬ কোটি টাকার একটি প্রকল্প নেয়া হয়েছে এবং শিগগিরই বজ্রপাতপ্রবণ এলাকায় এসব যন্ত্র বসানো হবে । 

আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, প্রতি বছর বজ্রপাতে অন্তত শতাধিক প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। গত ১০ বছরে বজ্রপাতের কারণে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত দুই হাজার মানুষ। বিষয়টিকে মাথায় রেখে বজ্রপাতকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ত্রাণ মন্ত্রণালয়। প্রতিমন্ত্রী জানান, এর মধ্যে ২০১৬, ২০১৭, ২০১৮ এবং চলতি বছর প্রাণহানি হয়েছে গড়ে তিনশর বেশি। ২০১১ সালে ১৭৯, ২০১২ সালে ২০১, ২০১৩ সালে ১৮৫, ২০১৪ সালে ১৭০, ২০১৫ সালে ২২৬, ২০১৯ সালে ১৯৮ এবং ২০২০ সালে ২৫৫ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। ২০১৬ সালে ৩৯১, ২০১৭ সালে ৩০৭, ২০১৮ সালে ৩৫৯ এবং চলতি বছর এখন পর্যন্ত প্রাণ গেছে ৩২৯ জনের।

বজ্রপাত থেকে মানুষ প্রাণিকুলকে রক্ষায় ৪৭৬ কোটি টাকার একটি প্রকল্প নেয়া হয়েছে জানিয়ে দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা তিন ধাপে কাজটি করব। প্রথমত মানুষকে সচেতন করতে আমরা সচেতনতামূলক কাজ করব। তিনি বলেন, বজ্রপাতের আগে মেঘে গুড়গুড় ডাক হবে। এর ৪০ মিনিট পর বজ্রপাত হয়। এই গুড়গুড় ডাক শোনার পরেই যাতে মানুষ ঘরে থাকে বা মেঘ দেখে যাতে ঘরে থাকে সে বিষয়ে তাদের সচেতন করা হবে। সেই সঙ্গে এখন আধুনিক বিশ্বে বজ্রপাতের জন্য সাইক্লোনের মতো আগাম সতর্কবার্তা দেয়ার ব্যবস্থা হয়েছে। কতগুলো মেশিন তৈরি করা হয়েছে যেগুলো ৪০ মিনিট আগে পূর্বাভাস দিতে পারে। এই মেশিনগুলো আমরা বসাব।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, যন্ত্রগুলো প্রাথমিকভাবে বজ্রপাত প্রবণ জেলাগুলোতে বসানো হবে, বিশেষ করে হাওড়বাঁওড় এলাকায় আমরা গুরুত্ব বেশি দিয়েছি। এই সিগন্যাল একটি অ্যাপের মাধ্যমে যাতে স্থানীয়দের মোবাইলে যেতে পারে সেজন্য একটি অ্যাপও তৈরি করা হবে।

পাশাপাশি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রের মতো বজ্রপাত প্রবণ এলাকায় বজ্রপাত আশ্রয় কেন্দ্র তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান এনামুর রহমান। তিনি বলেন, আমরা যতগুলো মৃত্যুর খবর দেখেছি সবই কিন্তু খোলা মাঠ বা হাওড়ের মধ্যে। শহরাঞ্চলে কিন্তু বজ্রপাতে মৃত্যু হয় না। জন্য বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রের মতো বজ্রপাতের আশ্রয় কেন্দ্র তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছি। বজ্রপাত প্রবণ মুক্ত এলাকায় এগুলো করা হবে।


এ জাতীয় আরো খবর
এক ক্লিকে বিভাগের খবর