মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৪:১২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
শিরোনাম:
দুই ছেলে ও স্ত্রী’র পাশে সমাহিত করা হয়েছে ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়াকে গাইবান্ধায় ভুমিহীন ও গৃহহীনদের মধ্যে জমিসহ গৃহ হস্তান্তর গাইবান্ধায় স্কুল ছাত্রকে বস্তাবন্দি করে পানিতে চুবিয়ে হত্যা, তিন বন্ধু গ্রেফতার গাইবান্ধায় গৃহহীন ও ভূমিহীন মানুষদের ঘর বরাদ্দ উপলক্ষে জেলা প্রশাসকের প্রেস বিফ্রিং গাইবান্ধায় জেলা পরিষদের বৈদ্যুতিক পাখা বিতরণ পেঁয়াজ আমদানির ফলে কমেছে দাম ছেলে-বউয়ের নির্যাতনে ঘর ছাড়া বৃদ্ধা মা যমুনা গর্ভে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতল ভবন বিরাট দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ফার্নিচার মেলা, খেলাধুলা বন্ধ সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যে ঈদুল আজহা ৯ জুলাই

পলাশবাড়িতে দরিদ্র পরিবারের সীমানায় প্রতিবেশীর বাড়ি নির্মানের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৮৬ বার পঠিত
প্রকাশের সময়: শনিবার, ২৩ জানুয়ারী, ২০২১, ৪:৩৬ অপরাহ্ন

পলাশবাড়ি প্রতিনিধি: গাইবান্ধার পলাশবাড়ি উপজেলার গৃধারীপুর মাস্টারপাড়া মিল্টন রোডে অতি দরিদ্র পরিবার দিল আফরোজা বেগম ও শাহ মোঃ খায়রুল বাশারের সীমানায় প্রতিবেশী কালিপদ সরকার সন্ত্রাসী বাহিনীর সহযোগিতায় পৌরসভার নকশা বিহীন জোর পূর্বক একটি পাকা ভবন নির্মাণ করে। এতে ওই ভবনের দেয়াল ও ছাদের পানি পড়ে ওই পরিবারের বসতবাড়ি ও আসবাবপত্র নষ্ট হয়ে ব্যাপক ক্ষতিসাধন হচ্ছে। ওই ভবনের নির্মাণ কাজ বন্ধ করার জন্য উকিল নোটিশ প্রদান ও পৌরসভার মেয়র বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি। উপরন্ত অভিযোগ দায়ের করায় ক্ষিপ্ত হয়ে সন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা তাদেরকে নানা ধরণের হুমকি প্রদর্শন করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে পলাশবাড়ি থানায় একটি জিডি করা হলেও পুলিশ কোন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। ফলে ওই পরিবারটি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। ফলে সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ প্রশাসনসহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ পূর্বক কালিপদ সরকার ও তার সন্ত্রাসী চক্রের প্রতিকার ও শাস্তির দাবি করেন।
সংবাদ সম্মেলনে শাহ মোঃ খায়রুল বাশার লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করেন, তারা ৪২ বৎসর পূর্বে জেএল নং ৭০, মৌজা- গৃধারীপুর, বিআরএস- ১০৬৪ নং খতিয়ান, হাল দাগ নং- ৪০৮৬ এ ৯ শতক জমি ক্রয় করে টিনের ঘর তুলে তারাই প্রথম বসবাস শুরু করেন। তারা গাভী পালন করে তার দুধ বিক্রি করে অতিকষ্টে জীবন যাপন করছিলেন এই দরিদ্র পরিবারটি। গত ১৫ বৎসর আগে তার প্রতিবেশী কালিপদ সরকার মাস্টার ও বিজলী রাণী সোয়া ২ শতক জমি ক্রয় করে তার পাশে বসবাস শুরু করে। কালিপদ মাস্টার প্রথমে বাড়ির সীমানা টিন দিয়ে বেড়া দেয়। কিছুদিন আগে টিনের বেড়া পরিবর্তন করে ইটের বেড়া নির্মাণ করার সময় সম্প্রতি ওই প্রাচীরের মাঝে মাঝে পিলার স্থাপন করলে তারা বাধা দেয়। পরবর্তীতে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তি ও ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্যকে সাথে নিয়ে একটি শালিস বৈঠকে কাজ স্থগিত করার জন্য সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু কালিপদ সরকার কোন সিদ্ধান্ত না মেনে গায়ের জোরে তাদেরকে নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের স্বত্ত্ব দখলীয় জমির উত্তর পার্শ্বের সীমানা ভেদ করে পৌরসভার নকশা ও অনুমোদন না নিয়ে সরকারি বিল্ডিং আইন কোড লঙ্ঘন করে ভিত্তি দিয়ে বিল্ডিং নির্মাণ করে। তারা ভবন নির্মাণ কাজে বাধা দিলে বাইরের সন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা তাদেরকে ভয়ভীতি দেখায়। ফলে তারা থানায় সাধারণ ডায়েরী করে এবং পৌরসভার নকশা ও অনুমতিহীন অবৈধ স্থাপনা বন্ধের জন্য উকিল নোটিশ প্রদান করেন। সরকারি বিল্ডিং কোড ও পৌরসভার নিয়ম মতে বিল্ডিং নির্মাণ করতে হলে ৩ ফুট জায়গা ছেড়ে দিয়ে বিল্ডিং নির্মাণ করতে হয়। যা কালিপদ মাস্টার না করে তার সীমানার উপর ফাউন্ডেশন দিয়ে বিল্ডিং নির্মাণ করেছে।


এ জাতীয় আরো খবর
এক ক্লিকে বিভাগের খবর